শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০
Home শিক্ষাঙ্গন আজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিষয়ে উপাচার্য পরিষদের বৈঠক

আজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিষয়ে উপাচার্য পরিষদের বৈঠক

- Advertisement -

আগামী শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ভর্তি কোন পদ্ধতিতে হবে তা নিয়ে আজ আলোচনায় বসবে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের সংগঠন উপাচার্য পরিষদ। বৈঠকটি শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনলাইনে জুমের মাধ্যমে পরিচালিত হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) উপাচার্য এবং উপাচার্য পরিষদের সভাপতি ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহর সভাপতিত্বে উপাচার্যদের নিয়ে ইউজিসির অন্যান্য কর্মকর্তারা বৈঠকে বসেন। বৈঠকে ভর্তি পরীক্ষা যেন কোনোভাবেই প্রশ্নবিদ্ধ না হয় তা নিশ্চিত করার তাগিদ দেয়া হয়েছে।

সভায় ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সবাই একটি সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা চাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দরকার।

সভায় উপস্থিত উপাচার্যরা জানান, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে ইউজিসি কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছে। কোনোভাবে ভর্তি পদ্ধতিটি প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য ইউজিসি থেকে জানানো হয়েছে।

এছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনা করে এখনই বিশ্ববিদ্যালয় খোলা মোটেও সমীচীন হবে না বলে মত দিয়েছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা।

মতে, হল খোলা হলে সেটি হবে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। কারণ, বিশ্বের অনেক বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে।

আগামী শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ভর্তি বিষয়ে উপাচার্য পরিষদের সভাপতি ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, আমরা বৈঠকে বসব, আলোচনা হবে। সব বিশ্ববিদ্যালয় তাদের প্রস্তাব দেবেন। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

গুচ্ছ পরীক্ষার বিষয়ে তিনি বলেন, সিদ্ধান্তটি যখন হয়েছিল তখন করোনা মহামারি ছিল না। এখন নতুন করে ভাবতে হবে, এই সিচুয়েশনে কোন পদ্ধতিতে ভর্তি করানো হবে তা নিয়ে অনেক আলোচনার বিষয় রয়েছে।

বর্তমানে দেশে ৪৬টি সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও ৩৯টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়।

এর আগে গত বছর ঢাকা, জাহাঙ্গীরনগর, রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া বাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিয়ে তিনটি গুচ্ছ করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

এদিকে গুচ্ছ ভিত্তিক বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য মীজানুর রহমান বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি-ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা অবশ্যই নেওয়া উচিত।

এ বছর যেহেতু এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি, তাই ভর্তি পরীক্ষা নেওয়াটা জরুরি। তবে পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কোনো অবস্থায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেওয়া যাবে না। সূত্রঃ একুশে টিভি। সম্পাদনায় ম/হ স ১৭১০/ ১০।

সর্বশেষ

জ্যাকুলিনের ছবিতে ঝড় উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়

জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ। এই নাম শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে এক ঝকঝকে হাসির মিষ্টি মেয়ের মুখ। এরইমধ্যে তার কিছু ছবিতে ঝড় উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। জ্যাকুলিন তার...

বাংলাদেশের সড়ক নেটওয়ার্কে আসবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন: সেতুমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামী দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশের সড়ক নেটওয়ার্কে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। তিনি বলেন,...

আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘর্ষ বাড়াচ্ছে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের সম্ভাবনা

টানা দুবার যুদ্ধবিরতিতে সমর্থন করেও থামছে না কোন পক্ষই। আরও তীব্র হয়েছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে চলা যুদ্ধ। প্রায় এক মাস ধরে চলা যুদ্ধে...

আমাদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রাখা উচিতঃ রানী মুখার্জি

এবছর একটু ভিন্ন ভাবে কাটছে পূজা। মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ নেই, আত্মীয়দের বাড়ি বাড়ি দাওয়াত খেয়ে বেড়ানোও হবে না এবার। করোনাভাইরাসের কারণে এবছর...