ব্রেকিং

x

বাপেক্স-পেট্রোবাংলার কাজে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর অসন্তোষ

রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৫:৩৭ অপরাহ্ণ


বাপেক্স-পেট্রোবাংলার কাজে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর অসন্তোষ
বাপেক্স ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী, ছবি: সংগৃহীত

পেট্রোবাংলা ও বাপেক্সের কাজে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। তিনি বলেন, ‘এই দুই সংস্থার বেশিরভাগ কর্মকর্তাই কাজে আগ্রহ দেখান না। সংস্থা থেকে বের হয়ে যওয়ার পর তারা নানারকম উদ্ভাবনের কথা বলেন। এর কারণ খুঁজে বের করা দরকার।’ রবিবার (১৫ নভেম্বর) রাজধানীর কাওরান বাজারে বাপেক্স ভবনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে ‘জিওলজিক্যাল ফিল্ড সার্ভে ফর হাইড্রো কার্বন এক্সপ্লোরেশন ইন বাংলাদেশ: প্রোগ্রেস অ্যান্ড চ্যালেঞ্জেস’ এবং ‘ড্রাই অ্যাবেন্ডেন্ট অ্যান্ড সাসপেন্ডেন্ট ওয়েলস অব বাংলাদেশ অ্যান্ড রি ভিজিট ফর ফারদার এক্সপ্লোরেশন’ শীর্ষক দুইটি ম্যানুয়ালের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। ম্যানুয়াল দুটি উপস্থাপন করেন বাপেক্সের মহাব্যবস্থাপক অহিদুল ইসলাম ও আলমগীর হোসেন।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাপেক্সকে আমরা কাজ দিচ্ছি না—এমন প্রশ্ন তোলেন অনেকে। আসলে আমরা তো বাপেক্সকে পুরো বাংলাদেশ দিয়ে রেখেছি। কিন্তু, তাদের কাজের গতি কম। গতি বাড়িয়ে আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে।’

নসরুল হামিদ বলেন, ‘যতবারই তাদের জিজ্ঞেস করা হয় কাজ করছেন না কেন, ততবারই তারা বলেন, হ্যা স্যার প্রস্তুতি নিচ্ছি। কিন্তু প্রস্তুতি আর শেষ হয় না, কাজও হয় না।’ তিনি বলেন, ‘স্ব স্ব ক্ষেত্রে লিডারশিপ থাকতে হবে। আপনাদের জনবল আছে, তাদের কাজে লাগাতে হবে। এটাই আপনাদের চ্যালেঞ্জ। না হলে আমরা বাইরে থেকে যত চেষ্টাই করি না কেন, সম্ভাবনাময় কাজ দেখতে পাবো না।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আগে বাপেক্স অনেক বড় বড় কাজ করেছে। কিন্তু, এখনকার অবস্থা ভালো না। এইভাবে চলতে দেওয়া যায় না। পেট্রোবাংলার অবস্থাও একই। ফলপ্রসূ কোনও ভূমিকা তো দেখি না তাদের।’

বাপেক্স ও পেট্রোবাংলার কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনাদের অক্ষমতার দায় নেবে না এই সরকার। আমরা আপনাদের কাজের মূল্যায়ন করবো। কাজ করতে না পারলে কাজ বিদেশি কোম্পানির হাতে যাবে।’



প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘অনশোরে ( স্থলভাগে) আমরা গ্যাসের অনুসন্ধান বাড়াতে চাই। পেট্রোবাংলার কাজ হচ্ছে বাপেক্সকে অত্যাধুনিক পদ্ধতি ও কাজের বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া। কিন্তু, কাজ তো বাপেক্সকেই করতে হবে। চুপচাপ বসে থাকলে তো চলবে না। প্রতিবছর গ্যাসের চাহিদা বাড়ছে। এই চাহিদা পূরণে বাধ্য হয়ে বিদেশ থেকে বেশি দামে গ্যাস আনছি। বিদেশ থেকে বেশি দামে গ্যাস আনার চেয়ে নিজেদের গ্যাস ব্যবহার করতে অনুসন্ধান জরুরি।’

এ সময় জ্বালানি বিশেষজ্ঞ বদরুল ইমাম বলেন, ‘পার্বত্য অঞ্চলে গ্যাসের কোনও অনুসন্ধান হয়নি। সেখানে সম্ভাবনা রয়েছে। ৩০ বছর আগে একটি কোম্পানি আগ্রহ দেখালেও কাজ হয়নি। একই স্ট্রাকচারে ভারতের যেসব এলাকা আছে, সেখানে তারা একের পর এক কূপ খনন করছে আর গ্যাস পাচ্ছে। ২০১০ সালে সবশেষ চারটি ব্লক বানিয়ে যৌথ কোম্পানি করার কথা বলা হলেও গত ৯ বছরে বাপেক্স কি কোনও আগ্রহী কোম্পানি খুঁজে পায়নি? গ্যাসের এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে পেট্রোবাংলা এবং বাপেক্সকে মাথা ঝাড়া দিয়ে উঠে দাঁড়াতে হবে এখনই। নানা সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বও এলএনজি আমদানি নিজেদের অযোগ্যতাই প্রমাণ করে।’

জ্বালানি সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, ‘এখনই তালিকা করে ঠিক করতে হবে আমাদের কী আছে, কী নেই। তালিকার পর কী পারবো আর কী পারবো না তা ঠিক করতে হবে। না পারলে সেটা কীভাবে করা দরকার তাও ঠিক করতে হবে। কাজের গতি বাড়াতে হলে একশন প্ল্যানের কোনও বিকল্প নেই।’

এদিকে, বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর মো. আব্দুল হান্নান বলেন, ‘বাপেক্স ১৫টি কূপ খনন করে ৬টিতে গ্যাস পেয়েছে। এটি বিশ্বের জন্য অনেক বড় বিষয়। বিশ্বে নতুন প্রযুক্তি আসছে। এসব প্রযুক্তি ব্যবহারে আলোচনা চলছে। আমরা কাজ করছি। আরও কাজের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।’

বাংলাদেশ সময়: ৫:৩৭ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯

যোগাযোগ২৪.কম |

আসামির জবানবন্দিতে আবরার হত্যার বীভৎস বর্ণনা

Development by: Jogajog Media Inc.

বাংলা বাংলা English English