মঙ্গলবার, অক্টোবর ২০, ২০২০
Home মতামত রোহিঙ্গাদের জন্য কি মানচিত্র বদলে যাবে তাহলে ?

রোহিঙ্গাদের জন্য কি মানচিত্র বদলে যাবে তাহলে ?

- Advertisement -

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গার স্বদেশে ফেরার বিষয়ে যেমনটি আশঙ্কা করা হয়েছিল, তেমনটিই ঘটেছে। যত শিগগির সম্ভব তাদের দেশে ফেরানোর কাজ শুরু হবে বলে মিয়ানমারের আশ্বাসে বিশ্বাস রাখা যে ভুল ছিল, বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী তা প্রকারান্তরে স্বীকার করে নিয়েছেন। বাংলাদেশের কারণে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়নি বলে মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাম্প্রতিক মন্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন যে দেশটি মিথ্যাচার করছে। তাঁর পূর্বসূরি অবশ্য নীতিকৌশলে কোনো ভুলের কথা মানতে রাজি ছিলেন বলে মনে হয়নি। বিশেষত, আন্তর্জাতিক ফোরামে সমস্যাটি সমাধানের কৌশল অনুসরণের দাবি উঠলেও চীন এবং ভারতের উৎসাহে দ্বিপক্ষীয় ভিত্তিতে সমাধান সন্ধানেই তিনি আস্থা রেখেছিলেন। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে গত প্রায় দুবছরে বহু কথা লেখা হয়েছে, আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এই জটিল সংকট এখন আরও জটিলতার দিকে যাচ্ছে কি না, সেই প্রশ্নটি বিবেচনা জরুরি হয়ে পড়েছে।

নতুন যে জটিলতার আশঙ্কা দেখা যাচ্ছে তার ইঙ্গিত মেলে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ এশিয়ার জন্য বাজেটবিষয়ক শুনানিতে। কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদের এশিয়া প্রশান্ত-মহাসাগরীয় উপকমিটির চেয়ারম্যান ব্রাড শেরম্যান রোহিঙ্গাদের জন্য মানচিত্রটাই বদলে দেওয়ার প্রস্তাব করেছেন। তিনি মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যকে দেশটি থেকে আলাদা করে দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্ত করার সম্ভাবনার কথা বিবেচনার জন্য পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ১৩ জুন অনুষ্ঠিত ওই শুনানির সূচনা বক্তব্যে ব্রাড শেরম্যান বলেন, সুদান থেকে দক্ষিণ সুদানকে আলাদা করে একটি নতুন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাকে যুক্তরাষ্ট্র যদি সমর্থন করতে পারে, তাহলে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গাদের নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য কেন একই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া যাবে না?

এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির কেন্দ্রে রয়েছে চীনকে মোকাবিলা করার নীতি। ভারত মহাসাগর এবং প্রশান্ত মহাসাগরে চীনের প্রভাববলয় যাতে বিস্তৃত না হয়, সেটাই হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় অগ্রাধিকার। কথিত ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজির আলোকে কংগ্রেসম্যান শেরম্যানের এই বক্তব্যকে বিশেষভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজির উদ্দেশ্য সম্পর্কে ওই শুনানিতে পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ এবং মধ্য এশিয়া ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি অব স্টেট অ্যালিস ওয়েলস বলেছেন, ভারত মহাসাগর ও প্রশান্ত-মহাসাগরীয় অঞ্চলে উন্মুক্ত ও অবাধ বাণিজ্য, নৌচলাচলের স্বাধীনতা, গণতন্ত্র এবং শান্তিপূর্ণ উপায়ে বিরোধ নিষ্পত্তিসহ আইনভিত্তিক ব্যবস্থার বিষয়ে (যুক্তরাষ্ট্র) প্রশাসন অঙ্গীকারবদ্ধ। বৈশ্বিক বাণিজ্যের ৭০ শতাংশ পরিবাহিত হয় এই ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় পথে এবং যুক্তরাষ্ট্র এই অঞ্চলের সাগর ও আকাশপথকে কূটনৈতিক সম্পর্ক, উন্নয়ন উদ্যোগ এবং নিরাপত্তা সহযোগিতার মাধ্যমে সুরক্ষা দেবে।

ওই একই বক্তব্যে মিস ওয়েলস বলেন, ওই অঞ্চলে আমাদের শরিক কোনো দেশে অস্থিতিশীল বা টেকসই নয় এমন অবকাঠামোর প্রকল্প গ্রহণ, যার পরিণতিতে অর্থনীতিতে অবাস্তব ঋণের বোঝা তৈরি হবে কিংবা স্বচ্ছতা ও গণতন্ত্রের রীতিনীতির অবক্ষয় ঘটাবে এমন কিছু আমরা চীন বা অন্য কোনো দেশকে করতে দিতে পারি না। যুক্তরাষ্ট্রের ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় নীতিকৌশলটির প্রতি যে দেশটির প্রধান দুই দলের সমর্থন রয়েছে, সে কথাও মিস ওয়েলস কমিটিকে স্মরণ করিয়ে দেন। এ ক্ষেত্রে ডেমোক্র্যাট এবং রিপাবলিকান উভয় দলের সমঝোতার ভিত্তিতেই কংগ্রেসে এশিয়া রিঅ্যাশিওরেন্স ইনিশিয়েটিভ অ্যাক্ট পাস করার কথা তিনি উল্লেখ করেন। এই পটভূমিতে কংগ্রেসম্যান শেরম্যানের প্রস্তাবকে একেবারে বিচ্ছিন্ন ব্যক্তিগত অভিমত হিসেবে কি উপেক্ষা করা যায়?

মিয়ানমারের প্রায় ৩৭ হাজার বর্গমাইল এলাকার এই রাজ্যটিতে চীনের বিশেষ আগ্রহের কথা কারও অজানা নয়। এই রাজ্যেই কিয়াকফিউতে চীন একটি গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করছে। সাগর থেকে উত্তোলিত গ্যাস ইউনানে নিয়ে যেতে কিয়াকফিউ থেকেই নির্মাণ করেছে পাইপলাইন। অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা এই রাজ্যের অর্থনীতিকে চাঙা করতে চীন সেখানে গড়ে তুলছে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল। চীনের বহুল আলোচিত এবং অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বৈশ্বিক উদ্যোগ বেল্ট অ্যান্ড রোডের আওতায় চীন-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডরের (সিএমইসি) আওতায় রেল এবং সড়ক সংযোগেরও অংশ হচ্ছে এই রাজ্য। সব মিলিয়ে বলা চলে, মিয়ানমারে চীনের অর্থনৈতিক স্বার্থের প্রধান অংশই রয়েছে রাখাইন রাজ্যে। জাতিগত বিভাজন ও বৈষম্য দূর করার লক্ষ্যে রাজ্যটিতে শিল্পায়নসহ অর্থনৈতিক পুনরুজ্জীবনের কথা আন্তর্জাতিক কমিশনের সুপারিশমালাতেও রয়েছে। রাজ্যটিতে ইতিমধ্যেই বড় আকারের চীনা বিনিয়োগ এসেছে। মিয়ানমার অবশ্য গভীর সমুদ্রবন্দরের প্রকল্পটিকে কাটছাঁট করে ৭০০ কোটি ডলারের বদলে ১০০ কোটি ডলারের কিছু বেশি অঙ্কে নামিয়ে এনেছে। তবে মূল কথা হচ্ছে এই বন্দরটি ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরে চীনের প্রভাব বজায় রাখার জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে আলোচিত প্রস্তাবটি এই সংকটে যেমন জটিলতা বাড়াতে পারে, তেমনই তা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারকে বাধ্যও করতে পারে। এ ধরনের প্রস্তাব মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াবে তাতে সন্দেহ নেই। তবে বাংলাদেশ তার দুই বৃহৎ এশীয় প্রতিবেশীদের সঙ্গে সম্পর্কে কোনো রকমের টানাপোড়েন সৃষ্টির ঝুঁকি নেবে কি না, সেটাও একটা বড় প্রশ্ন।

বৈশ্বিক রাজনীতির প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তিগুলোর প্রভাববলয় বিস্তারের প্রতিযোগিতায় রোহিঙ্গা সংকট স্পষ্টতই একটা অংশ হয়ে পড়েছে। এই রাজনৈতিক রেষারেষির কারণেই রোহিঙ্গাদের ওপর পরিচালিত গণহত্যা প্রতিরোধে যেমন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় নিষ্ক্রিয় থেকেছে, তেমনই মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচারের প্রশ্নেও কোনো ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি। রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদে ও মর্যাদার সঙ্গে নিজ বাসভূমে ফিরে যাওয়ার সুযোগ দেওয়ার প্রশ্নে ঐকমত্য থাকলেও তার প্রক্রিয়া এবং তদারকির প্রশ্নে রয়েছে মতভেদ। ফলে বৈষম্যমূলক নীতি পরিবর্তনে অনীহা, নাগরিকত্বের স্বীকৃতিদানে অস্বীকৃতি এবং নানা ধরনের কূটকৌশলে পুরো বিষয়টি অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে এবং তা দীর্ঘায়িত হয়ে চলেছে।

দাতা সংস্থা বা ত্রাণকর্মীরা নিজেদের স্বার্থে এই প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করছে বলে মূল সমস্যা থেকে সাধারণ মানুষের দৃষ্টি ঘোরানোর চেষ্টা করা হলেও মূল সমস্যা যে বৈশ্বিক রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, তা অস্বীকার করা চলে না। অদূর ভবিষ্যতে এই প্রত্যাবাসন শুরু হবে এমন সম্ভাবনা যে ক্ষীণ, সে কথা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রতিনিধির কথাতেও স্পষ্ট। ইউএসএইডের মিস গ্লোরিয়া স্টিল ওই শুনানিতে বলেছেন যে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের বাংলাদেশে অবস্থান যে দীর্ঘায়িত হবে, তা মেনে নিয়েই বাজেটে বরাদ্দ রাখা প্রয়োজন।

এই বিপুলসংখ্যক উদ্বাস্তুর ন্যূনতম মানবিক চাহিদা পূরণে রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে ঠিক কী পরিমাণ ব্যয় করা হচ্ছে, তা নিয়ে আমাদের গণমাধ্যমের কোনো আগ্রহ চোখে পড়ে না। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মানবিক সহায়তা দিচ্ছে ঠিকই, কিন্তু তা যে প্রয়োজন মেটাতে পারছে এমন নয়। জাতিসংঘ প্রতিবছরই অর্থায়নে ঘাটতির কথা জানাচ্ছে। এ রকম বাস্তবতায় আশ্রয়দাতা দেশের ওপর যে চাপ পড়ছে, তা থেকে সহসা আমাদের মুক্তি নেই। সুতরাং, অকার্যকর নীতিকৌশল পর্যালোচনা করে নতুন পথে চলার কথাও ভাবা প্রয়োজন।

কামাল আহমেদ: সাংবাদিক

সর্বশেষ

করোনায় তিনমাস পর ভারতে সর্বনিম্ন প্রাণহানি

বিশ্বে করোনা শনাক্তের তালিকায় ২য় অবস্থানে আছে ভারত। যেখানে কমেছে সংক্রমণ ও প্রাণহানি। গত এক সপ্তাহ সংক্রমণ ৭০ হাজারের কোটায় থাকলেও আজ তা ৫৫...

অপেক্ষায় দিন গুনছে আনুশকা ও বিরাট

অপেক্ষায় দিন গুনছেন আনুশকা শর্মা। একই অপেক্ষায় রয়েছেন বিরাট কোহলিও। আর কয়েকদিন পরেই এই জুটির ঘরে আসবে নতুন অতিথি। প্রথমবার সন্তানের বাবা-মা হবেন তারা।...

জাপানের ভ্যাকসিন প্রকল্পে সাইবার হামলা, চীনকে দুষছে যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন সম্পর্কিত তথ্য চীন হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ তুলেছে যুক্তরাষ্ট্র। করোনার চিকিৎসা ও এর প্রতিরোধে কার্যকর ভ্যাকসিন পেতে অন্য...

বিগ বস ১৪-র ঘরে হাজির হচ্ছেন রিয়া চক্রবর্তী

বিগ বস ১৪-র ঘরে হাজির হচ্ছেন রিয়া চক্রবর্তী! বেশ কিছুদিন ধরেই এমন গুঞ্জন শুরু হয়েছে। রিয়া চক্রবর্তী এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য না করলেও, ফের...